করোনাভাইরাসে ‘বদলে যাওয়া’ টেস্ট ক্রিকেট ফিরছে আজ

অবশেষে আসছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ! সব প্রস্তুতি সেরে অপেক্ষায় সাউদাম্পটনের অ্যাজেস বোল। আজ (বুধবার) এখানেই শুরু হবে করোনাভাইরাস বিরতির পর প্রথম টেস্ট। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঐতিহাসিক দ্বৈরথ দিয়ে প্রায় চার মাস পর আবারও গর্জে উঠবে ক্রিকেট বিশ্বে।

ক্রিকেট ইতিহাসে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের লড়াইয়ে এমনিতেই অন্যরকম উত্তাপ আছে, এর ওপর আবার করোনার পর তাদেরকেই দিয়ে শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক ম্যাচ- দুয়ে মিলে তিন ম্যাচের সিরিজটি ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে। তারা প্রতীক্ষায় আছে বাংলাদেশ সময় বুধবার বিকেল ৪টায় শুরু হতে যাওয়া সাউদাম্পটন টেস্টের। তবে সেখানে টেস্টের চিরচেনা রূপ থাকছে না। কোভিড-১৯ ক্রিকেটের অনেক কিছুই পাল্টে দিয়েছে। নতুন রূপে হাজির হওয়া ২২ গজের লড়াই দেখার আগ্রহটা সে কারণেও আরও বেশি।

মাঠে বসে খেলা দেখার সুযোগ নেই। টিভির পর্দাই একমাত্র ভরসা। করোনাভাইরাসে লকডাউনের মধ্যে টেস্ট ম্যাচের আনন্দ উপভোগ করতে সোফা কিংবা বিছানায় গা এলিয়ে দেওয়ার আগে নতুন নিয়মগুলো জেনে নেওয়াটা অবশ্যই দরকার। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের লড়াইয়ে কী কী বদল আসছে, সেগুলো দেখে নেওয়া যাক-

বলে লালার ব্যবহার নিষিদ্ধ:

টেস্ট ম্যাচে পেসাররা বাড়তি সুইং পেতে বলে লালা ব্যবহার করে থাকেন। চিরচেনা এই দৃশ্যটা চোখে পড়বে না ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ লড়াইয়ে। খেলোয়াড়রা বল উজ্জ্বল করতে লালা ব্যবহার করতে পারবেন না। কোভিড-১৯ রোগ থেকে নিরাপদে থাকতেই আইসিসির সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করেছে লালার ব্যবহার। ভুলক্রমে কেউ লালা ব্যবহার করলে সেই দলকে প্রথমে সতর্ক করা হবে। প্রত্যেক ইনিংসে সর্বোচ্চ দুইবার সতর্ক করা হবে। এরপরও একই ভুল করলে ব্যাটিং দলকে ৫ রান পেনাল্টি দেওয়া হবে। আর বলে লালা লাগালে পুনরায় বলটি জীবাণুমুক্ত করে তবেই খেলা শুরু করা হবে।

কোভিড-১৯ বদলি:

খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে বদলির নিয়মও চালু হচ্ছে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ থেকে। টেস্ট ম্যাচ চলাকালীন কোনও খেলোয়াড়ের করোনা লক্ষণ দেখা দিলে সংশ্লিষ্ট দলটি তার বদলি খেলোয়াড় নামাতে পারবে। বদলির অনুমোদন দেবেন ম্যাচ রেফারি। আর সেটি হবে ‘কনকাশন-সাব’-এর মতো। অর্থাৎ, ব্যাটসম্যানের বদলে ব্যাটসম্যান ও বোলারের বদলে বোলার বদলি করতে পারবে সংশ্লিষ্ট দলটি।

থাকছে না নিরপেক্ষ আম্পায়ার:

টেস্ট ক্রিকেটে মাঠের দুই আম্পায়ারসহ সব অফিসিয়ালই হন নিরপেক্ষ। তবে কোভিড-১৯-এ থাকছে না নিরপেক্ষ আম্পায়ার। করোনার কারণে বেশিরভাগ দেশেই ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সেটি বিবেচনা করে সাময়িক সময়ের জন্য নিরপেক্ষ আম্পায়ার নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। এতে প্রায় ১৯ বছর পর আবারও ইংল্যান্ডের মাটিতে কোনও ইংলিশ আম্পায়ারকে ম্যাচ পরিচালনা করতে দেখা যবে। এই সিরিজের জন্য থাকছেন পাঁচ ইংলিশ আম্পায়ার- রিচার্ড ইলিংওর্থ, রিচার্ড কেটেলবরো, মাইকেল গফ, অ্যালেক্স উয়ার্ফ ও ডেভিড মিলন্স।

বাড়তি রিভিউ:

ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে অভিজ্ঞ আম্পায়ার থাকলেও করোনাকালীন সময়ে অনেক সিরিজে তুলনামূলক কম অভিজ্ঞ আম্পায়ারদের নিয়োগ দেওয়া হবে। এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে প্রতি ইনিংসে বাড়তি ডিআরএস রাখা হয়েছে। আগে টেস্টে প্রতি ইনিংসে দলগুলো নিতে পারতো সর্বোচ্চ দুটি রিভিউ, সংকটকালীন সময়ে নিতে পারবে তিনটি রিভিউ। এছাড়া ওয়ানডেও একটি রিভিউ বেড়ে করা হয়েছে দুটি।

মাঠে থাকছে না দর্শক:

ইউরোপিয়ান ফুটবল লিগগুলো শুরু হয়েছে মে মাস থেকে। দর্শকহীন মাঠেই চলছে লড়াই। ক্রিকেটও ফিরছে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে। ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের লড়াইয়ে গ্যালারি থাকবে ফাঁকা। প্লেয়ার জোনেও খেলোয়াড়রা সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখবেন। দুই অধিনায়ক বেন স্টোকস ও জেসন হোল্ডারের জন্য আলাদা জায়গা তৈরি করা হয়েছে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার জন্য।





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: