প্রথম একসঙ্গে তারিন-সালমান, গল্পটা অসম প্রেমের!

একটি দৃশ্যে তারিন জাহান ও সালমান মুক্তাদিরতারিন জাহান, দেশের প্রধান টিভি অভিনেত্রীদের একজন। যদিও শেষ ছ’বছর কমিয়েছেন কাজের সংখ্যা, বাড়িয়েছেন সোশ্যাল অ্যাকটিভিটি।

সালমান মুক্তাদির, মূলত ইউটিউবার হলেও তার পরিচিতি গড়ে উঠেছে ‘ব্যাড বয়’ হিসেবে।
অভিনয় বা সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেকে ফুটিয়ে তোলার চেয়ে বিতর্কে জড়াতেই সম্ভবত বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন!
চয়নিকা চৌধুরী, মাত্র ৭দিন আগে (১ জুলাই) প্রচার হয়েছে তার নির্মাণে ৪’শতম নাটক! কনটিনিউটি ব্রেকের এই মিডিয়ায় সংখ্যার বিচারে একটু অবিশ্বাস্য। নারী নির্মাতা হিসেবে বিষয়টি গর্বের। সময়ের সেরা তারকাদের নিয়ে কাজ করার কারণে নিজেকে পাদপ্রদীপের নিচেই রাখেন সবসময়।
ব্যাখ্যা দেওয়ার কারণ, তিন জনের চলমান অবস্থানই বেশ ভিন্ন। যারা এক হলেন প্রথম। করোনাকাল উপেক্ষা করে নির্মাণে যুক্ত হলেন ভিন্ন কিছু। ফারিয়া হোসেনের চিত্রনাট্যে তুহিন বড়ুয়ার প্রযোজনায় নাটকটির নাম ‘মেঘলা মনের মেয়ে’। যেখানে দেখা যাবে তারিন ও সালমানের অসম প্রেম। বাস্তবেও একে অপরের বয়সের ব্যবধান বেশ!
৮ জুলাই শুটিং ইউনিট থেকে চয়নিকা চৌধুরী জানালেন, তারিন ও সালমান এবারই প্রথম মুখোমুখি হলো। চলছে শেষ দিনের কাজ।
আরেকটি দৃশ্যে সালমান ও তারিনতিনি বলেন, ‘তারিনের সঙ্গে আমার কাজের সংখ্যা প্রচুর। তবুও মনে হচ্ছে এটা আমাদের প্রথম কাজ। কারণ, মাঝের ছয় বছর আমরা দুজনে একহয়ে কোনও কাজ করিনি। সালমানকে নিয়েও এটা আমার ও তারিনের প্রথম কাজ। এরমধ্যে টানা ঘরবন্দি জীবন থেকে বাইরে আসা। মনে হচ্ছে, আমরা বুঝি নতুন জীবনে নতুন পৃথিবীতে আবার নতুন করে শুরু করলাম!’
আসছে ঈদের জন্য নির্মিত হচ্ছে ‘মেঘলা মনের মেয়ে’। যার নাম ভূমিকায় তারিন জাহান। আর প্রেমিক চরিত্রে সালমান মুক্তাদির। আরও অভিনয় করছেন মিলি বাশার ও সামিয়া অথৈ।
টানা ছয় বছর পর তারিনকে শুটিং সেটে পেয়ে একটু বেশিই উচ্ছ্বাসিত নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী। আগবাড়িয়ে বললেন, ‌‘ছয় বছর পরে হলেও, সেই পুরনো তারিনকেই পেলাম নতুনকরে। স্ক্রিপ্ট নিয়ে ভাবা, আলোচনা করা, রিহার্সাল করা, কেয়ার করা- সব একই আছে। এটাই হচ্ছে একজন জাতশিল্পীর ধরন।’





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: