ত্বকী ও করোনায় মৃতদের স্মরণে আলোক প্রজ্বালন

ত্বকী ও বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের স্মরণে বাড়িতে বাড়িতে আলোক প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করেছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট। আজ সন্ধ্যা সাতটায় শহরের শায়েস্তা খান রোডের বাড়িতে মোমশিখা প্রজ্জ্বালন কর্মসূচিতে ত্বকীর মা ও বাবা। ছবি: প্রথম আলোনারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীসহ সারা বিশ্বে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা যাওয়া মৃত ব্যক্তিদের স্মরণ ও বিশ্বশান্তি কামনায় একযোগে সামাজিক দূরত্ব মেনে বাড়িতে বাড়িতে আলোক প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করেছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট।

আজ বুধবার সন্ধ্যা সাতটায় নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ত্বকী হত্যার ৮৮ মাস উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা প্রায় নিজ নিজ বাড়িতে এ কর্মসূচি পালন করেন।

কর্মসূচি উপলক্ষে সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক, নিহত ত্বকীর বাবা রফিউর রাব্বি বলেন, ‘দেশে বিচারব্যবস্থা স্বাধীন হলে একটি হত্যার বিচারের অভিযোগপত্র তৈরি হয়েও তা সাত বছর আটকে থাকতে পারে না। আমরা একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ফিরে পেতে চাই। যেখানে সবার বিচার পাওয়ার নিশ্চয়তা থাকবে, কথা বলার ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকবে। সংবাদপত্র, নির্বাচনব্যবস্থা, বিচারব্যবস্থাসহ দেশের প্রত্যেক নাগরিক সংবিধানে উল্লেখিত অধিকার পাবে। সরকারের কতিপয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে দেশের স্বাধীনতা জিম্মি হয়ে থাকবে না। আমরা সাগর-রুনি, তনুসহ নারায়ণগঞ্জের আশিক, চঞ্চল, মিঠু, বুলু হত্যার বিচার চাই। দেশে ও বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই, তাদের পরিবারের প্রতি জানাই সমবেদনা।’

নিজ নিজ অবস্থানে থেকে কর্মসূচিতে অংশ নেন সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্যসচিব হালিম আজাদ, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানী শংকর, সাবেক সভাপতি জিয়াউল ইসলাম, প্রদীপ ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক শাহীন মাহমুদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা, মনি সুপান্থ, নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, খেলাঘর নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি রথীন চক্রবর্তী, উদীচী জেলা সভাপতি জাহিদুল হক, সাধারণ সম্পাদক পলাশ দে, সমগীতের সভাপতি অমল আকাশ, সিপিবি জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, বাসদ জেলা কমিটির সমন্বয়ক নিখিল দাস, ন্যাপ জেলা সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন, গণসংহতি আন্দোলন জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজনসহ প্রায় ২০০ সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতা-কর্মী।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৬ মার্চ নগরের শায়েস্তা খান রোডের বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হয় তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী। দুই দিন পর ৮ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদীর কুমুদিনী শাখা খাল থেকে ত্বকীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই বছরের ১২ নভেম্বর আজমেরী ওসমানের সহযোগী সুলতান শওকত ভ্রমর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানায়, আজমেরী ওসমানের নেতৃত্বে ত্বকীকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। এরপর থেকে ত্বকীর হত্যার বিচার শুরু ও চিহ্নিত আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে প্রতি মাসের ৮ তারিখ আলোক প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট।





সম্পূর্ণ রিপোর্টটি প্রথম আলোতে পড়ুন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: