স্বাস্থ্যখাতে অনিয়মের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে: কাদের

ওবায়দুল কাদেরস্বাস্থ্যখাতে অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান কঠোর বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষার ভুয়া সনদ, প্লাজমা ডোনেশন, সুরক্ষাসামগ্রী ক্রয়, হাসপাতালের যন্ত্রপাতি সংগ্রহসহ স্বাস্থ্যখাতে নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সরকারের শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। এটি অব্যাহত থাকবে।’

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে নিজ বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি। এ অনুষ্ঠানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রেড জোনভুক্ত এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলোর বিভিন্ন হাসপাতালে উন্নতমানের ভাইরাস প্রতিরোধ সামগ্রী প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘অপরাধীর কোনও দলীয় পরিচয় নেই। যতই ক্ষমতাধর হোক তাকে আইনের আওতায় আসতে হবে। যারা জনগণের অসহায়ত্ব নিয়ে অবৈধ ব্যবসা করছে, প্রতারণা করছে, তাদের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতিতে অটল।’

করোনা সংকটের পাশাপাশি বন্যা দুর্গত অসহায় মানুষের সুরক্ষা সরকারের জন্য নতুন আরেকটি চ্যালেঞ্জ বলে উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘প্রতি বছর নানান ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশের সক্ষমতা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে সংকটের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও মানবিক নেতৃত্বের জন্য।  দুর্যোগকালে মানবিকতার আধার ও আস্থার ঠিকানা শেখ হাসিনা সব সময় অসহায় মানুষের পাশে আছেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকারের নানামুখী উদ্যোগের অংশ হিসেবে ৫০ লাখ মানুষকে দুই হাজার ৫০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে কিছু কিছু অসামঞ্জস্য ধরা পড়ায় সরকার নিজ উদ্যোগেই তদন্ত পূর্বক যাচাই-বাছাই করে প্রকৃত অসহায়দের সহায়তার টাকা দিচ্ছে।’

এ অনুষ্ঠানে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে প্রতিনিধিদের মাঝে করোনা প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন– আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, এসএম কামাল হোসেন ও সাখাওয়াত হোসেন শফিক, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাক্তার রোকেয়া সুলতানা, উপদফতর সম্পাদক সায়েম খান ও কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য শাহাবুদ্দিন ফরাজি এবং আনিসুর রহমান।

 





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: