নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও সাগরে মাছ শিকার

পটুয়াখালীর কুয়াকাটা উপজেলার হোসেনপাড়া এলাকার জেলে আবু বকর সিদ্দিক খুটা জাল দিয়ে সাগরে মাছ ধরেন। সাগরে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও মহাজনের তাগাদা আর ধারের টাকা পরিশোধের জন্য এ কাজ করছেন তিনি।

নিষেধাজ্ঞার মধ্যে সাগরে মাছ ধরতে চাঁদা দিতে হচ্ছে বলে জানান জেলেরা। শুধু আবু বকরই নন, কুয়াকাটার ১৮ কিলোমিটার দীর্ঘ সৈকতে অন্তত দুই শতাধিক ছোট–বড় ট্রলার সাগরে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মাছ শিকার করছে। একটি ব্যবসায়ী চক্র জেলেদের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা বলে চাঁদা আদায় করছে বলে অভিযোগ।

নির্বিঘ্নে প্রজনন নিশ্চিত করা এবং ছোট মাছকে বড় হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করতে গত ২০ মে থেকে ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য বিভাগ। এ নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে ২৪ জুলাই। এই সময়ে সাগরে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে সরকারের মৎস্য বিভাগ সংশ্লিষ্ট এলাকায় গণসচেতনতার জন্য ব্যাপক মাইকিং ও নানামুখী প্রচারণা চালায়। কিন্তু কে শোনে কার কথা? নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ছোট-বড় ট্রলার নিয়ে অবাধে মাছ ধরছেন জেলেরা।

বরফকলগুলোর ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও পটুয়াখালীর মৎস্যবন্দর মহিপুর ও আলীপুরের অধিকাংশ বরফকল চালু রয়েছে। এসব বরফকল থেকে বরফ নিয়ে ট্রলারগুলো রওনা দিচ্ছে গভীর সাগরে।

সম্প্রতি কুয়াকাটা, গঙ্গামতি, কাউয়ার চর, লেম্বুর চরে গিয়ে দেখা যায়, সাগর থেকে মাছ শিকার শেষে ফিরছেন কেউ। আবার কেউ যাচ্ছেন মাছের শিকারে। ইঞ্জিনচালিত ছোট ছোট নৌকা নিয়ে কমপক্ষে অর্ধশত খুটা জেলেনৌকা সৈকতের অদূরে মাছ শিকার করছে। বড় ট্রলারও গভীর সাগরে মাছ শিকার করে উপকূলে ফিরেছে।

সাগরে অবাধে মাছ শিকারে ব্যস্ত এসব জেলের নিরাপত্তা দেওয়ার নামে একটি চক্র সক্রিয়। জেলেদের কাছ থেকে ট্রলারের আকার প্রকৃতি অনুযায়ী ট্রলারপ্রতি ২ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিচ্ছে চক্রটি।

জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এমনিতেই করোনার কারণে জেলেরা অন্য পেশায় যেতে পারছেন না। ঘূর্ণিঝড় আম্পানও তাঁদের ক্ষতি করে গেছে। ৬৫ দিন সাগরে মাছ ধরা বন্ধের সময় বিশেষ খাদ্যসহায়তা এখনো তাঁরা অনেকেই পাননি। অভাব–অনটনে পড়েই তাঁরা সাগরে গিয়ে জাল ফেলছেন।

কুয়াকাটার জেলে হোসেন ফকির বলেন, নিষেধাজ্ঞার সময়ে জেলেদের সাগরে মাছ শিকারে অনীহা রয়েছে। এমনিতেই সাগরে এখন মাছ কম ধরা পড়ছে। তার ওপর সরকারি নজরদারি। কিন্তু মহাজনেরা তাঁদের বরফ বিক্রি এবং মাছ কিনে দাদনের টাকা পরিশোধ করে নেওয়ার জন্য জেলেদের সাগরে মাছ ধরতে উদ্বুদ্ধ করছেন।

তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে মহিপুর মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফজলু গাজী দাবি করেন, সরকারের দেওয়া নিষেধাজ্ঞা মেনেই তাঁরা মাছ শিকার ও ব্যবসা পরিচালনা করেন। জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে মাছ শিকারের সুযোগ দেওয়ার কথা সম্পূর্ণ মিথ্যা। জেলেদের কাছ থেকে যাতে কেউ এ ধরনের টাকা–পয়সা নিতে না পারে, সে জন্য ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে মহিপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামন বলেন, ‘সাগরে অবৈধ মাছ শিকারের বিষয়টি আমরাও শুনেছি। আমাদের তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। প্রমাণ সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’





সম্পূর্ণ রিপোর্টটি প্রথম আলোতে পড়ুন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: