ফিলিপাইনে বন্ধই থাকছে এবিএস-সিবিএন চ্যানেলের সম্প্রচার

দেশের বৃহত্তম সম্প্রচারমাধ্যম এবিএস-সিবিএন এর লাইসেন্স নবায়নের আবেদন খারিজ করে দিয়েছে ফিলিপাইন সরকার। শুক্রবার (১০ জুলাই) একটি সংসদীয় কমিটির সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের সম্মতিতে আবেদনটি প্রত্যাখ্যান্ করা হয়। এর মধ্য দিয়ে গত মে মাস থেকে বন্ধ থাকা এবিএস-সিবিএন চ্যানেলের সম্প্রচার আপাতত চালু হওয়ার সুযোগ থাকছে না। তবে শুক্রবারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ পাবে সিবিএস-এবিএন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

১৯৫৩ সালে প্রতিষ্ঠিত এবিএস-সিবিএন মিডিয়া গোষ্ঠীটির ফিলিপাইনজুড়ে কয়েকটি টেলিভিশন ও রেডিও স্টেশন রয়েছে। অনলাইনেও খবর প্রচার করে থাকে তারা। প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরত আছে প্রায় ১১ হাজার মানুষ। গত ৪ মে এবিএস-সিবিএন এর লাইসেন্স-এর মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পরই এর সম্প্রচার বন্ধ ঘোষণা করে ফিলিপাইনের মিডিয়া নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান। আরও ২৫ বছরের জন্য লাইসেন্স-এর মেয়াদ নবায়ন করার অনুরোধ জানায় সম্প্রচারমাধ্যমটি। শুক্রবার এ নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে ভোটাভুটি হয়। কমিটির বেশিরভাগ সদস্যই লাইসেন্স নবায়ন না করার পক্ষে ভোট দেন।

একে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য অন্ধকার দিন বলে উল্লেখ করেছেন হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়াবিষয়ক উপ পরিচালক ফিল রবার্টসন। তিনি বলেন, ‘যে দেশটিকে একসময় এ অঞ্চলের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের দুর্গ বলে মনে করা হতো, সে দেশটিতেই আজ গণমাধ্যমের স্বাধীনতার অন্ধকার দিন রচিত হলো।’

সরকার সমালোচকরা বলছেন, প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তের সমালোচনা করার কারণে এ পরিণতি ভোগ করতে হচ্ছে চ্যানেলটিকে। ২০১৬ সালে দুয়ার্তের নির্বাচনি প্রচারণা সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন প্রচারে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল এবিএস-সিবিএন। ক্ষুব্ধ দুয়ার্তে নির্বাচনে জয়ী হলে চ্যানেলটির লাইসেন্স নবায়ন বন্ধ করার হুমকি দিয়েছিলেন।

 





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: