অনাগ্রহ মিসরের পেঁয়াজে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভর্তূকি মূল্যে টিসিবি’র পণ্যে ক্রেতাদের সন্তোষ

tokjal.com

অনাগ্রহ মিসরের পেঁয়াজে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভর্তূকি মূল্যে টিসিবি’র পণ্যে ক্রেতাদের সন্তোষ


জাকির হোসেন পিংকু,চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভর্তূকি ও নায্য মূল্যে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি চলছে। ভোগ্যপণ্য বাজার স্থিতিশীল রাখতে জেলা প্রশাসনের তত্বাবধানে এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ক্রেতারা। সোমবার(২৩’মার্চ) বিকেলে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ট্রাক থেকে পণ্য বিক্রির সময় ক্রেতা ও টিসিবি’র ডিলারের সাথে কথা বললে উভয় পক্ষ কার্যক্রমের ব্যাপারে সন্তোষ প্রকাশ করেন।
টিসিবি ৫০ টাকা কেজি দরে চিনি,৮০ টাকা লিটার হিসেবে সেনা কল্যাণ সংস্থার বোতলজাত সয়াবিন তেল, ৫০ টাকা কেজি দরে মসুর ডাল ও ৩৫টাকা কেজি দরে আমদানী করা মিসরের পেঁয়াজ বিক্রি করছে। জেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে ডিলার ৬৫০ টাকার একটি প্যাকেজ বিক্রি করছেন। এতে দেয়া হচ্ছে ২ কেজি চিনি(১শ’ টাকা),৫লিটার তেল(৪শ’টাকা),১কেজি ডাল(৫০টাকা)ও ২ কেজি ৮শ’ গ্রাম পেঁয়াজ (১শ’টাকা)। তবে সরবরাহের উপর প্যাকেজ ঠিক করা হয়। টিসিবি পন্যের মান ভাল ও দর বাজারের চাইতে তুলনামূলক সাশ্রয়ী।
ক্রেতাদের আপত্তি শুধু বড় সাইজের মিসরের পেঁয়াজে। প্রত্যেক ক্রেতার সাথে সমন্বয় করে শৃঙ্খলার সাথে কার্যক্রম পরিচালনাকালে পণ্যের প্যাকেজ অনেক ক্ষেত্রে কমবেশি করা হলেও ১শ’টাকার পেঁয়াজ ক্রয় বাধ্যতামূলক প্রত্যেক ক্রেতার জন্য। শুধু এক্ষেত্রেই আপত্তি অনেক ক্রেতার। অনেকেই ১শ’ টাকার মিসরের পেয়াঁজ ক্রয়ে আগ্রহী নন।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (এনডিসি) রবিন মিয়া বলেন, ডিলার ভর্তূকি মূল্যে সকল পন্য বিক্রি করছেন। তাকে তো উত্তোলণকৃত পেঁয়াজও বিক্রি করতে হবে। কার্য়ক্রম পরিদর্শনে আসা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দেবেন্দ্র নাঁথ উরাঁও একই কথা বলেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যা দুটি ট্রাকে ৩ টন পেয়াঁজসহ অনান্য পন্য বিক্রি করছেন ডিলার মেসার্স মোশারফ হোসেন এন্ড ব্রাদার্স। পন্য ক্রয়ে সহনীয় ভীড় রয়েছে।ক্রেতাদের লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। এই কার্যক্রম অব্যহত থাকবে বলে জানা গেছে। এদিকে জেলার অন্য সকল উপজেলাতেও টিসিবি’র পণ্য বিক্রির দাবি রয়েছে। ##


Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সবচেয়ে বেশী পড়া হয়েছে