পাবনায় পদ্মা-যমুনার পানি কমছে

পাবনায় পদ্মা ও যমুনাসহ বিভিন্ন নদীতে কমতে শুরু করেছে বন্যার পানি। তবে পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে নতুন করে ভাঙনের শঙ্কা নদীপাড়ের মানুষের মনে। তবে ভাঙন প্রতিরোধে সব প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে পাউবো।

পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ড বেড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হামিদ জানান, শনিবার (১১ জুলাই) সকালে যমুনা নদীর নগরবাড়ি পয়েন্টে পানি রেকর্ড ৯.৪১ সেন্টিমিটার বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনায় পানি বৃদ্ধির ফলে নিচু ও চরের জমি প্লাবিত এবং ভাঙনের কবলে পড়েছে। ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধানে রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে। নেওয়া হয়েছে বাড়তি সর্তকতা।

পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মোফাজ্জল হোসেন জানান, পদ্মা নদীর পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে ২.৩৬ সেন্টিমিটার বিপদসীমার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এই পয়েন্টে বিপদসীমা নির্ধারণ হয়েছে ১৪.২৫ সেন্টিমিটার। বর্তমানে ১১.৮৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

পাউবো’র পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কেএম জহুরুল ইসলাম বলেন, এখন পর্যন্ত তেমন কোনও ভাঙন দেখা দেয়নি। তবে পাউবো সংশ্লিষ্টরা নদী ভাঙনসহ যে কোনও সমস্যা সমাধানে তৎপর রয়েছে।

পদ্মা ও যমুনা নদীপাড়ের ভাঙন কবলিত একাধিক জনের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, নদীতে পানি বাড়লেও বিপদ, কমলেও বিপদ। পানি প্রবেশের সময় নদীতে ভাঙন দেখা যায়, কেড়ে নেয় জমিজমাসহ ফসলী জমি। ঝুঁকিতে পড়ে বাড়িঘর, মসজিদ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রভৃতি।

পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আহমেদ ফিরোজ কবির বলেন, নিয়মিত ভাঙন এলাকাগুলো পরিদর্শন ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে আলাপ করে ভাঙন প্রতিরোধসহ নদীপাড়গুলো জরুরিভাবে মেরামতের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

 

 





সম্পূর্ণ রিপোর্টটি প্রথম আলোতে পড়ুন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: