সিরিয়ায় নতুন করে জাতিসংঘের ত্রাণ কার্যক্রম শুরু

সিরিয়ায় নতুন করে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার কাজ শুরু করতে প্রস্তাব পাস করেছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। শনিবার (১১ জুলাই) ১৫ সদস্যবিশিষ্ট নিরাপত্তা পরিষদে ১২ ভোটে প্রস্তাবটি পাস হয়। রাশিয়া, চীন ও ডমিনিকান প্রজাতন্ত্র ভোটদানে বিরত ছিল। তবে রাশিয়ার চাপের মুখে শুধু একটি সীমান্ত পথ দিয়ে ত্রাণ সরবরাহের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, তুরস্ক সংলগ্ন বাব আল হাওয়া সীমান্ত ব্যবহার করে আগামী এক বছর ত্রাণ সরবরাহের কাজ চালানো যাবে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

নিরাপত্তা পরিষদের অনুমোদনক্রমে ২০১৪ সাল থেকে সিরিয়ায় ত্রাণ সরবরাহ করে যাচ্ছে জাতিসংঘ। শুক্রবার (১০ জুলাই) মস্কো ও বেইজিং ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগ করলে এর মেয়াদ শেষ হয়। সিরিয়ার সরকারের মিত্র দেশ রাশিয়া উত্থাপিত বিকল্প প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে নিরাপত্তা পরিষদ। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই রাশিয়া দাবি করে আসছিল ত্রাণ সরবরাহের ক্ষেত্রে বাব আল সালাম সীমান্ত পথ বন্ধ করে দেওয়ার জন্য। এ পথটি সিরিয়ার আলেপ্পোর সঙ্গে সংযুক্ত। জার্মানি আর বেলজিয়ামের পক্ষ থেকে প্রস্তাব করা হয়, শুধু বাব আল হাওয়া সীমান্ত পথ ব্যবহারের। আর অন্য ইউরোপীয় দেশগুলো ও যুক্তরাষ্ট্র চেয়েছিল দুই পথেরই ব্যবহার করতে।

শেষ পর্যন্ত জার্মানি ও বেলজিয়ামের প্রস্তাবটি পাস করেছে নিরাপত্তা পরিষদ। প্রস্তাব অনুযায়ী, ২০২১ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত বাব আল হাওয়া সীমান্তপথ ব্যবহার করা হবে।

দামেস্ক কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই বাস্তুচ্যুত সিরীয়দের মাঝে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অনুমতি দিয়ে রেখেছে জাতিসংঘ। তবে রাশিয়া ও চীনের দাবি, এর মধ্য দিয়ে সিরিয়ার সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

 





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: