কোচদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মিটিংয়ে সুফল পাচ্ছেন মুমিনুলরা

কোচের সঙ্গে মুমিনুল-ফাইল ছবিকরোনাভাইরাসের কারণে ১৭ মার্চের পর থেকে স্থবির হয়ে আছে দেশের ক্রিকেটাঙ্গন। বন্ধ হয়ে আছে ক্রিকেটের সকল কার্যক্রম। কবে মাঠের খেলায় ফিরবেন ক্রিকেটাররা তার ঠিক নেই। অবশ্য মাঠের ক্রিকেট বন্ধ থাকলেও ক্রিকেটাররা সীমিত পরিসরে ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) নানামুখী উদ্যোগও নিয়েছে। ইতিমধ্যে ৩৮ ক্রিকেটারদের বাসায় পাঠিয়েছে ফিটনেস ট্রেনিংয়ের উপকরণ। সেগুলো দিয়ে চলছে তাদের কাজ। মাঠে ক্রিকেট ফেরাতে কাজ করে যাচ্ছে বিসিবি।

আগস্টে ক্রিকেটারদের মাঠে ফেরানোর লক্ষ্যে ৩৮ সদস্যের পুল তৈরি করেছেন জাতীয় দলের দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন ও হাবিবুল বাশার। আপাতত কোচিং স্টাফদের পরামর্শ মেনেই কাজ করছেন মুশফিক-মুমিনুলরা। তাদের সঙ্গে নিয়মিত মিটিং করছে জাতীয় দলের কোচিং স্টাফরা। অনলাইন মিটিংয়ে জাতীয় দলের নিয়মিত ক্রিকেটারদের পাশাপাশি দলের আশেপাশে থাকা ক্রিকেটাররাও যোগ দিচ্ছেন। বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ হয়ে চলে সেই মিটিং। বিসিবি রবিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

কোচ রাসেল ডমিঙ্গোসহ অন্য কোচদের সঙ্গে মিটিং করে সুফল পাচ্ছেন টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল ইসলাম। তিনি বলেছেন,‘আমরা প্রত্যেকেই যত দ্রুত সম্ভব মাঠে ফিরতে চাই। ক্রিকেটার হিসেবে ট্রেনিং ও খেলতে না পারা চরম বিরক্তিকর। এজন্য এ ধরনের মিটিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। এতে মনোযোগ ধরে রাখা এবং ক্রিকেটের সংস্পর্শে থাকা যায়।’ মিটিংয়ের উপকারিতা তুলে ধরে মুমিনুল আরও বলেছেন, ‘মিটিংয়ে মানসিক শক্তি এবং পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের সাম্প্রতিক টেস্ট পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ হয়েছে এবং আমরা কী শিখতে পেরেছি সেগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমি মনে করি প্রত্যেকেই এখন নিজেকে অনেক সময় দিতে পারছে এবং নিজের খেলা নিয়ে পরিষ্কার ধারণা পাচ্ছে। একইসঙ্গে কী করতে হবে, কী করা উচিত হবে না সেগুলোও বুঝতে পারছে। সকল খেলোয়াড়- সিনিয়র থেকে শুরু করে দলে যারা নতুন আছে তারা প্রত্যেকে মিটিংয়ে অংশ নিচ্ছে এবং নিজেদের মনোভাব, পরিকল্পনা জানাচ্ছে। কোচ এবং আমরা যারা সতীর্থ সবাই তা শুনছি।’

মুমিনুলের সঙ্গে সুর মিলিয়ে একই কথা বলেছেন জাতীয় দলের অফস্পিনিং অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন, ‘সেদিন মুশফিকুর রহিম ভাই খেলোয়াড়দের দায়িত্ব নিয়ে কথা বলছেন। সিনিয়র ক্রিকেটাররা আমাদের থেকে কী প্রত্যাশা করছেন এবং দলকে এগিয়ে নিতে আমরা কী চিন্তা করি সেগুলো নিয়ে কথা বলেছেন। পাশাপাশি ভিডিও বিশ্লেষণ করায় আমরা খুব উপকার পাচ্ছি।’ 





সম্পূর্ণ রিপোর্টটি প্রথম আলোতে পড়ুন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: