দাদার সঙ্গে নদীতে গোসলে নেমে দুই নাতির মৃত্যু

প্রতীকী ছবিবরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গোপালপুর গ্রামে দাদার সঙ্গে রাঙামাটি নদীতে গোসলে নেমে দুই নাতির মৃত্যু হয়েছে।

রোববার বেলা দেড়টার দিকে বাড়িসংলগ্ন রাঙামাটি নদীতে গোসল করতে নেমে দুই শিশু নিখোঁজ হয়। এরপর সন্ধ্যায় নদীতে উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা তাদের মরদেহ উদ্ধার করেন।

মৃত শিশুরা হলো মো. জোবায়েদ (৪) ও আবদুর রহমান (৭)। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই। জোবায়েদ গোপালপুর গ্রামের মামুন পাহলানের ছেলে। আর আবদুর রহমান মামুন পাহলানের ভাই সোহেল পাহলানের ছেলে।

পরিবার সূত্র জানায়, মামুন পাহলানের বাবা জয়নাল আবেদীন দুই নাতি জোবায়েদ ও আবদুর রহমানকে নিয়ে বেলা দেড়টার দিকে বাড়িসংলগ্ন রাঙামাটি নদীতে গোসল করতে যান। নদীর পাড়ে পৌঁছে নাতিদের বসিয়ে রেখে ছাগলের জন্য কাঁঠালপাতা সংগ্রহে গাছে ওঠেন জয়নাল আবেদীন। তবে গাছ থেকে তিনি নেমে দেখেন, নাতিরা নেই। নদীর পাড়ে জুতা পড়ে আছে তাদের। এরপর অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাদের সন্ধান পাননি। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের চার সদস্যের ডুবুরি দল সেখানে পৌঁছে বিকেল থেকে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে।

বরিশাল ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের লিডার মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, নদী খরস্রোতা হওয়ায় উদ্ধার তৎপরতা চালাতে ডুবুরিদের বেগ পেতে হয়েছে। প্রায় আড়াই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে নদীর মধ্যে জোবায়েদের মরদেহ পাওয়া যায়। এর প্রায় ১০ মিনিট পর আবদুর রহমানের মরদেহ পাওয়া যায়। নদী থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি জালাল উদ্দিন। মরদেহ উদ্ধারের পর জালাল উদ্দিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। চিকিৎসা দেওয়ার পর তিনি সুস্থ হন।

বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বলেন, পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। নদী থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা।





সম্পূর্ণ রিপোর্টটি প্রথম আলোতে পড়ুন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: