কালু নগর খাল ব্যবস্থাপনার নির্দেশ ডিএসসিসি মেয়রের

কালু নগর খাল ব্যবস্থাপনার নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। বুধবার (৭ অক্টোবর) দুপুরে সাপ্তাহিক নিয়মিত পরিদর্শনের অংশ হিসেবে কালু নগর খাল পরিদর্শনে গিয়ে ডিএসসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ ও প্রকৌশল বিভাগকে তিনি এই নির্দেশ দেন।

পরিদর্শনকালে ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, ‘কালু নগর খালের বক্স কালভার্ট অংশ হতে ডাউন স্লপে পানি প্রবাহ সৃষ্টি করতে পারলে এই অঞ্চলের জলাবদ্ধতা অনেকাংশে কমবে। এছাড়া মশার প্রজননস্থল ধ্বংস হবে।’

বক্স কালভার্টের ভেতর দিয়ে পানি প্রবাহের জন্য বর্তমানে ব্যবহৃত তিন ফিট ব্যাসার্ধের পাইপটি পুরোপুরি আটকে আছে জানিয়ে ডিএসসিসি মেয়র নির্দেশনা দিয়ে বলেন, ‘আটকে থাকা ময়লা অবমুক্ত করার পাশাপাশি প্রয়োজনে বড় আকারের পাইপ ব্যবহার করে পানি প্রবাহ সৃষ্টি করতে হবে। জনগণ যাতে খালের দুই পাশ থেকে ময়লা ফেলতে না পারে, সেজন্য উঁচু করে ফেন্সিং করতে হবে। আর জনগণকেও আমি অনুরোধ করবো, খালে কোনও ময়লা না ফেলার জন্য।’

ডিএসসিসির প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর মো. বদরুল আমিন জানান, মেয়রের নির্দেশনা মোতাবেক আজ থেকেই খালের বর্জ্য পরিষ্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। শিগগিরই কালু নগর খালে পানি প্রবাহ সৃষ্টি করতে পারবো বলে আশাবাদী।

প্রসঙ্গত, ডিএসসিসির ১০টি অঞ্চলের ১০টি খাল ও জলাশয় নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ইতোমধ্যে একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে। প্রকল্পটি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

মেয়র পরিদর্শনে কালু নগর খালের পাশাপাশি ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের স্লটার হাউস, গজমহল পার্ক ও হাজারীবাগ কাঁচাবাজার, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের হাজারীবাগ পার্ক, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের নবাবগঞ্জ কাঁচাবাজার, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের আব্দুল আলীম খেলার মাঠ ও ২১ নম্বর ওয়ার্ডের হ্যাপি রহমান প্লাজা পরিদর্শন করেন।

ডিএসসিসি মেয়রের সঙ্গে এই সময় করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী, সচিব আকরামুজ্জামান, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক উপস্থিত ছিলেন।





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: