ধর্ষণের পর মেয়েটিকে ফেলে রেখে যায় বাড়ির বাথরুমে

ধর্ষণপঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রুবেল হোসেনকে (২২) নামে এক যুবককে আসামি করে তেঁতুলিয়া মডেল থানায় মামলা হয়েছে। বর্তমানে মেয়েটি পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, তেঁতুলিয়ার দেবনগর ইউনিয়নের হেংগাডোবা গ্রামের রফিজুল ইসলামের ছেলে রুবেল ওই মেয়েটিকে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল। বিষয়টি মেয়েটি তার বাবা-মা’কে জানালে তারা রুবেলের পরিবারের কাছে অভিযোগ করে। এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আরও বেপরোয়া হয়ে যায়। শনিবার (৪ জুলাই) রাতে ওই কিশোরী ঘর থেকে বের হলে বাইরে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা রুবেল তার মুখ চেপে ধরে বাড়ির পাশের বাঁশ বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটি অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে তার বাড়ির বাথরুমে বিবস্ত্র অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। মাঝরাতে ওই এলাকায় রুবেলকে দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের সন্দেহ হয়। স্থানীয়রা তাকে আটক করার চেষ্টা করে কিন্তু সে পালিয়ে যায়।

এদিকে ওই কিশোরীকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করে পরিবারের লোকজন। বাঁশঝাড়ে রুবেলের ও মেয়েটির জুতা, পরনের কাপড় পায়। পরদিন সকালে পরিবারের লোকজন বাথরুমে তাকে খুঁজে পেয়ে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে রুবেলকে আসামি করে মামলা করে। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তেঁতুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক আমজাদ আলী মন্ডল জানান, ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে মেয়েটিকে আমলি আদালতের বিচারকের কাছে জবানবন্দির জন্য হাজির করা হবে। আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু সাঈদ চৌধুরী জানান, আসামিকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

 

 

 





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: