কুষ্টিয়ার পদ্মায় নৌকা ডুবে ৪জন শ্রমিক নিখোঁজ

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ার কুমারখালীর পদ্মা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় ৪ শ্রমিক নিখোঁজ হয়েছেন। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার চরসাদীপুর ইউনিয়নের ঘোষপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন পদ্মা নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় চরসাদীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিখোঁজ শ্রমিকরা হলেন ভেড়ামারা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের হারানের ছেলে জুয়েল (৩০), একই গ্রামের নজুর ছেলে জাকির (২৫), জলিলের ছেলে শরিফুল (৩০) এবং রঞ্জিতের ছেলে জুবা (৩০)।

স্থানীয় চরসাদীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ঘোষপুর গ্রামের মেম্বার মো. আব্দুল মালেক জানান, মঙ্গলবার সকালে ভেড়ামারা উপজেলার ৯জন পানবরজের শ্রমিক উলু কাটার জন্য নৌকায় আসছিলেন। এসময় পদ্মার প্রবল স্রোতে তাদের নৌকা ডুবে যায়। এসময় ৫জন শ্রমিক সাঁতরে নদী তীরে উঠতে পারলেও বাকি ৪ জন শ্রমিক এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। স্থানীয়ভাবে তাদের উদ্ধারে চেষ্টা চলছে।

স্থানীয় চরসাদীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন জানান, সকালে দুটি নৌকায় উলু কাটার জন্য শ্রমিকরা যাচ্ছিলেন। এসময় পদ্মার প্রবল স্রোতে তাদের নৌকা ডুবে যায়। ইতোমধ্যে ঘটনাস্থলে পাবনা ফায়ার সার্ভিস পৌঁছে গেছে। স্থানীয় কুমারখালী ফায়ারসার্ভিস ঘটনাস্থলে রওনা হয়েছে বলে খবর পেয়েছি। পাবনা ও রাজশাহী থেকে এসে ডুবুরিদল এসে উদ্ধার কাজে যোগ দেয়।

কুমারখালী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার অমিয় কুমার বিশ্বাস জানান, আমরা বেলা ২টা পর্যন্ত সেখানে ছিলাম। কিন্তু নদীর ভেতর অবস্থানটা শনাক্ত করতে পারিনি। পরে পাবনা ফায়ার স্টেশন থেকে ডুবুরি এসে উদ্ধার কাজে যুক্ত হয়। বেলা আড়াইটার দিকে রাজশাহী থেকে ডুবুরি দল এসে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছেন। তবে এখনও নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

পাবনা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আনোয়ার হোসেন জানান, এখনও কাউকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এখানে অনেকেই উপস্থিত আছেন সেখানে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে কতক্ষণ উদ্ধার কাজ চলবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

 





আরও পড়ূন বাংলা ট্রিবিউনে

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: